ঢাকা, , শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯

উলঙ্গ হয়ে শিশুকে বলি দেওয়ার চেষ্টায় মা-বাবা!

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-০৭ ১৫:৪৯:৪৮ || আপডেট: ২০১৯-০৭-০৭ ১৫:৫০:০৪

অনলাইন ডেস্ক: তান্ত্রিকের পরামর্শে ঈশ্বরকে খুশি করার জন্য তিন বছরের মেয়েকে বলি দিতে গেলেন তার শিক্ষক। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন শিশুটির মা-বাবা ছাড়া আরও পাঁচজন। বলি দেওয়ার এক পর্যায়ে বিবস্ত্র অবস্থায় মন্ত্র উচ্চারণ শুরু করেন তারা! পুরো ঘটনাটির এমন একটি ভিডিও ইতিমধ্যেই ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

বিচিত্র এই ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল শনিবার ভারতের আসামের উদালগুড়ি জেলার কুশালিপাড়ায়। 

পুলিশের বরাত দিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া এক্সপ্রেস জানিয়েছে, এলাকার স্বঘোষিত এক সাধু রমেশ সাহারিয়ার নির্দেশে তিন বছরের এক মেয়ে শিশুকে তার পরিবার ও শিক্ষক মিলে বলি দেওয়ার চেষ্টা করছিল। পরিবারটি ঈশ্বরকে খুশি করার জন্য সন্তানের আত্মত্যাগের চেষ্টা করেছিল। এই খবর জানাজানি হতেই বেঁধে যায় গণ্ডগোল।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, শিশুটির শিক্ষক জ্যাকব সাহারিয়ার বাড়ির এক মন্দিরেই এই ন্যাক্করজনক কার্যকলাপের আয়োজন করা হয়েছিল। আত্মীয়তার দিক থেকে এই শিশুটি জ্যাকবের শ্যালিকার মেয়ে। সব থেকে তাজ্জব বিষয়টি হলো- এই বলি অনুষ্ঠানে হাজির ছিল শিশুটির মা-বাবাও। আর তাদের সম্মতিতেই নাকি পুরো ঘটনা ঘটছিল।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পরিবারের সব সদস্য উলঙ্গ হয়ে অংশ নিয়েছিল সেই পূজায়। কিন্তু মন্ত্রোচ্চারণ হতেই পাড়া-পড়শিরা কৌতূহলী হয়ে দেখতে যান-ওই বাড়িতে কী হচ্ছে। আর চোখের সামনে এই কাণ্ড ঘটতে দেখে তারা প্রথমে তাদের ওইকাজ থেকে বিরত করার চেষ্টা করেন। কিন্তু রমেশ, জ্যাকব ও পরিবারের সদস্যরা ধারালো অস্ত্র দেখিয়ে তাদের ভয় দেখাতে শুরু করে। সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ খবর দেন এলাকাবাসী।

পুলিশের সঙ্গে আসে প্যারামিলিটারি ফোর্সও। কিন্তু পরিস্থতি ততক্ষণে লাগামের বাইরে চলে যায়। অভিযুক্ত জ্যাকব নিজের বাড়িতেই আগুন ধরিয়ে দিয়ে বাঁচার চেষ্টা করতে থাকে। ভেঙে ফেলে নিজেদের গাড়িও। অবশেষে পাঁচ ঘণ্টার চেষ্টায় অভিযুক্তদের সবাইকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শিশুটিকেও উদ্ধার করা হয়েছে।

উদালগুড়ি জেলা প্রশাসক দিলিপ কুমার বলেন, ‘তারা আসলেই পাগল।  নাহলে ভালো মানুষ কি কখনো আবাসিক এলাকায় এমন ন্যাক্কারজনক কাজ করে? শিক্ষকের (জ্যাকব) মেয়ে কিছুদিন আগেই আত্মহত্যা করে মারা গেছে।  এরপর থেকেই পরিবারের সদস্যরা মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছে।’

তিনি আরও জানান, মোট আটজন লোক এই পূজায় অংশ নেন। তারা কয়েক ঘণ্টা যাবৎ উলঙ্গ অবস্থায় পূজা করছিলেন।