ঢাকা, , সোমবার, ১৫ জুলাই ২০১৯

ধর্মের নামে বাড়ছে বিভাজন: অমর্ত্য সেন

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-০৬ ১৩:৩৯:৫২ || আপডেট: ২০১৯-০৭-০৬ ১৩:৪৪:১৭

অনলাইন ডেস্ক: নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক অমর্ত্য সেন বলেছেন, ধর্মের নামে ভারতে এখন বিভাজন বাড়ছে। জোর করে বুলি আওড়ানোর চেষ্টা, মারধরের রাজনীতি চলছে। এমন পরিস্থিতিতে এখন দেশে প্রয়োজন মানবাধিকার শিক্ষার। গতকাল শুক্রবার বিকেলে কলকাতার ঐতিহ্যবাহী যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের গান্ধী মিলনায়তনে আয়োজিত ‘স্বাধীনতা–পরবর্তী কলকাতা’ শীর্ষক এক সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন। অমর্ত্য সেনের একক বক্তৃতা অনুষ্ঠানটি সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক পার্থ চ্যাটার্জি।

আলোচনা সভায় যোগ দিয়ে অমর্ত্য সেন বলেন, ‘ধর্ম নিয়ে ভারতবর্ষে এখন নতুন করে পার্থক্য তৈরি হচ্ছে। ভারতের সংবিধানে বিভিন্ন ধর্মের যে স্থান, তাতে ধর্ম নিয়ে পার্থক্য থাকা উচিত নয়। কিন্তু যখন শুনি একজন রিকশাওয়ালাকে রিকশা থামিয়ে একটি বুলি আওড়াতে বলা হয়, সেই বুলি না আওড়ালে তাঁর মাথায় লাঠির বাড়ি পড়ে, তিনি রক্তাক্ত হন, তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে, তখন খুব খারাপ লাগে। কলকাতার ঐতিহ্য অনুসারে এটা কাম্য নয়। তাই এখন ধর্মীয় অসহিষ্ণুতা মোকাবিলায় মানবাধিকার শিক্ষার প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। ছোট থেকে শিশুদের সঙ্গে এই শিক্ষার পরিচয় করিয়ে দিতে হবে।’
অমর্ত্য সেন বলেন, ‘জয় শ্রীরাম ধ্বনি এখন প্রহারের মন্ত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাংলায় এসব ইদানীংকালে আমদানি। বঙ্গ সংস্কৃতিতে এ ধরনের স্লোগানের কোনো জায়গা ছিল না। আজ যখন শুনি, বিশেষ বিশেষ সম্প্রদায়ের মানুষ ভীতসন্ত্রস্ত, শঙ্কিত হয়ে এই কলকাতা শহরের রাস্তায় বের হন, তখন আমার এই গর্বের শহরকে চিনতে পারি না।’