ঢাকা, , শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯

বইমেলায় হিরো আলমের বই,স্টলে বসে অটোগ্রাফও দেবেন

প্রকাশ: ২০১৯-০২-০৭ ১৮:৪৪:০৭ || আপডেট: ২০১৯-০২-০৭ ১৮:৪৪:১১

অনলাইন ডেস্ক: নিজের তৈরি বিভিন্ন মিউজিক ভিডিও দিয়ে আলোচনায় আসেন আশরাফুল আলম। যিনি এখন হিরো আলম নামেই পরিচিত। এ মিউজিক ভিডিওগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে সেগুলো নিয়ে ব্যাপক আকারে ট্রল হতে থাকে। এ থেকেই দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিদেশেও পরিচিতি পেয়ে যান হিরো আলম।

নিজের তৈরি বিভিন্ন মিউজিক ভিডিও দিয়ে আলোচনায় আসেন আশরাফুল আলম। যিনি এখন হিরো আলম নামেই পরিচিত। এ মিউজিক ভিডিওগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে সেগুলো নিয়ে ব্যাপক আকারে ট্রল হতে থাকে। এ থেকেই দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিদেশেও পরিচিতি পেয়ে যান হিরো আলম।

তারপর থেকে কখনো নিজের নির্মিত ভিডিও, কখনো মডেল, কখনো অভিনয়, কখনো আবার বলিউড ছবিতে অভিনয়ের চুক্তি করার খবর প্রকাশ হয়েও আলোচনায় থাকতে দেখা গেছে তাকে।

গেল বছরের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিংহ মার্কায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য পদে নির্বাচন করে দেশব্যাপী আলোচনায় আসেন এই অভিনেতা। ইসিকে হাইকোর্ট দেখানো হিরো আলমকে নিয়ে দেশ-বিদেশের গণমাধ্যমেও গুরুত্বসহকারে সংবাদ প্রকাশ হয়।

একের পর এক বিভিন্ন ঘটনার জন্ম দিয়ে আলোচনায় আসা হিরো আলমের জীবনী নিয়ে এবার অমর একুশে বইমেলায় একটি বই প্রকাশিত হয়েছে। ‘দৃষ্টিভঙ্গি বদলান আমরা সমাজকে বদলে দেবো’ নামের জীবনী বিষয়ক গ্রন্থটি এনেছে প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান তরফদার প্রকাশনী।

হিরো আলম জানান, পান্ডুলিপি তার নিজের। বইটি সম্পাদনা করেছেন তরফদার প্রকাশনীর প্রকাশক সৌরভ আলম সাবিদ। তাকে সহযোগিতা করেছেন তার ছোট ভাই নাফিজ আহম্মেদ খান।

এই অভিনেতা জানান, আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বই মেলায় “তরফদার প্রকাশনী” ১৯৬নং স্টলে় পাওয়া যাবে তার বই “দৃষ্টিভঙ্গি বদলান আমরা সমাজকে বদলে দেবো”।

ডিস ব্যবসায়ী থেকে তারকা বনে যাওয়া হিরো আলম সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, কেউ কিনবে নাকি না কিনবে সেটা বড় কথা না তবে আমি সকলকে অনুরোধ করবো বইটি একবার হলেও পড়া উচিত, না কিনলেও অন্তত খুলে পড়ে দেখবেন। আমাকে নিয়ে সবাই অনেক হাসি ঠাট্টা করেন ট্রল করেন, কিন্তু পর্দার ওপারে হিরো আলমকে কয়জন চিনেন? আমার জীবনটা কতটুকু কষ্টের মধ্যে পার করেছে এবং কতটুকু পরিশ্রমের দ্বারা আজ আমি হিরো আলম হয়েছি সেটা শুধু আমি জানি। আমার পর্দার উপারের ঘটনাগুলো জানলে আজ হয়তো আপনারা আমাকে নিয়ে ট্রল করতেন না, বরং আমাকে উৎসাহ দিতেন।

“যাই হোক আপনারা যদি নিজেদের দৃষ্টিভঙ্গি না বদলান তাহলে আমাদের সমাজ এবং দেশ কখনোই বদলাবে না। আমি হিরো আলম হয়তো মারা যাবো কিন্তু আমার লেখা বইটি থেকে যাবে এবং একদিন না একদিন আমার এই লেখাগুলো আপনাদেরকে কাঁদাবে কথা দিলাম।”

তরফদার প্রকাশনীর প্রকাশক সৌরভ আলম সাবিদ বলেন, পান্ডুলিপি হিরো আলমের নিজের। তিনি সবসময় চাইতেন যে, যেই সকল মানুষ আজ তাকে নিয়ে হাসি ঠাট্রা করছেন, তারাসহ দেশের সকল মানুষের ভালোবাসা যাতে তিনি একদিন অর্জন করেতে পারেন। তার বিশ্বাস একদিন না একদিন দেশের মানুষ তাকে স্মরণ করবে, ভালোবাসবে।

“এই বইটিতে হিরো আলমের জীবনী তুলে ধরা হয়েছে। তিনি মারা যাবেন কিন্তু তার লেখা বইটি বেঁচে থাকবে মানুষের মনে যুগ যুগ ধরে। হিরো আলম সমস্ত পান্ডুলিপি মুখে বলেছেন এবং লেখার ক্ষেত্রে আমি তাকে সহযোগিতা করেছি। আশা করি বইটি পড়ার পরে অনেকেরই দৃষ্টিভঙ্গি কিছুটা হলেও পরিবর্তন ঘটবে।”

সৌরভ আলম সাবিদ তরুণদের বইটি পড়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, একজন চানাচুর বিক্রেতা থেকে যদি সে আজ হিরো আলম হতে পারে, তবে আজকের কিছু তরুণের কেন এত হতাশা। কেন তারা আত্মহত্যার পথ বেছে নিচ্ছেন? হিরো আলম যদি অশিক্ষিত হয়েও থেমে না থাকে, তরুণগুলো কেন থেমে যায়?

আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বই মেলায় হিরো আলম নিজে স্টলে বসে অটোগ্রাফ দেবেন বলেও প্রতিবেদককে জানান তরফদার প্রকাশনীর এই প্রকাশক।