ঢাকা, , শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০১৯

বাদ পড়া নয় দায়িত্ব পরিবর্তন : ওবায়দুল কাদের

প্রকাশ: ২০১৯-০১-০৮ ১০:১০:৪৬ || আপডেট: ২০১৯-০১-০৮ ১০:১০:৪৬

 

অনলাইন ডেস্ক: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, দলের প্রয়োজনেই মন্ত্রিসভা থেকে পুরনো অনেক বড় নেতাকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। নতুনরা কতদিন থাকতে পারবেন, তা নির্ভর করবে তাদের কর্মদক্ষতার ওপর। এখানে বাদ পড়াটা আমি ঠিক ওভাবে বলতে চাই না। আমার মনে হয়, বিষয়টা দায়িত্বের পরিবর্তন। সেভাবে দেখা যায়। তারা পার্টিতে মনোনিবেশ করবেন। কারণ সরকারের মধ্যে দল যখন হারিয়ে যায়, তখন দলের অস্তিত্ব
খুঁজে পাওয়া কঠিন। গতকাল সকালে সচিবালয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে আলাপচারিতায় তিনি এসব কথা বলেন।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, যেসব এলাকা থেকে দীর্ঘদিন কেউ মন্ত্রিসভায় আসতে পারেননি, এবার সরকার গঠনের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী সেসব জেলাকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন। এই যে পরিবর্তন, নতুন সরকারের নতুন ভাবনা, নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে বেশিরভাগ নিউ ফেস নিয়ে যে মন্ত্রিসভা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিকে উপহার দিয়েছেন, এটা জনগণ কী চোখে দেখছে, কীভাবে নিচ্ছে… সেটি ভেরি ইমপর্টেন্ট। তবে বিষয়টা তারা ভালোভাবেই নিচ্ছেন। এ মন্ত্রিসভার সুনামই শুনতে পাচ্ছি। এতে ফ্রেশ মুখ আসায় অনেকে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। বিভিন্ন টেলিভিশন টকশোতে প্রশংসা বেশি এসেছে। এখন যারা আছেন, তারাই স্থায়ী তা মনে করার কারণ নেই। এটা সময়ে সময়ে চাহিদা অনুযায়ী পরিবর্তনও হতে পারে।

নতুনদের বেশি প্রাধান্য দেওয়ায় দলে কোনো অসন্তোষ থাকছে কিনা জানতে চাইলে কাদের বলেন, আমাদের দলে এখন যে কোনো সময়ের চেয়ে ঐক্য অনেক বেশি দৃঢ় ও শক্তিশালী। এটি নিয়ে দলে কোনো অসন্তোষ বা ফাটল ধরার কারণ নেই। আমাদের সময়ে সময়ে সম্মেলন হয়, দলের মধ্যে দায়িত্বের পরিবর্তন আসে।

বাদ পড়াদের অভিজ্ঞতাও কাজে লাগানো হবে মন্তব্য করে কাদের বলেন, সরকার এবং দলের আলাদা সত্তা। সেটি যেন বিকাশের সুযোগ পায়। একটা স্মার্ট আধুনিক সরকারের পাশাপাশি স্ট্রংগার স্মার্ট দল যদি থাকে, তাহলে বলে-ব্যাটে স্কোর করতে সুবিধা।

ওবায়দুল কাদের মনে করেন, দলের নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নে এই মন্ত্রিসভায় অভিজ্ঞ অনেকে আছে। এনার্জি, ট্রাডিশন, টেকনোলজি আর নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে ফাইন ব্যালান্স করে আমাদের লক্ষ্য বাস্তবায়ন করা সহজতর হবে। তিনি বলেন, নতুন মন্ত্রীরা যখন কাজে মনোনিবেশ করবেন, তারা যখন দায়িত্ব পালন করবেন, তখন তাদের দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে প্রমিজের ওপর কতটা ডেলিভারি করতে পারেন, তার ওপর নির্ভর করবে সাফল্য-ব্যর্থতা। প্রত্যাশার সঙ্গে বাস্তবতার মিল কতটুকু তা জানা যাবে।

শরিক দল থেকে কাউকে সরকারে না রাখার সিদ্ধান্ত কোনো বিরূপ প্রভাব ফেলবে কিনা জানতে চাইলে কাদের বলেন, শরিক দল তো আমাদের সঙ্গে আছে, থাকবে। মন্ত্রী না হলে থাকবেন না, এ রকম তো কথা নয়। এ মুহূর্তে প্রথম মন্ত্রিসভা গঠিত হলো, ভবিষ্যতে আরও সম্প্রসারণ হতে পারে। এগুলো তো হবেই। ৫ বছর অনেক সময়।